logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo পুঁথি ও হাতের কাজ করা টুপির জনপ্রিয়তা
ঈদের আনন্দের অন্যতম একটি দিক হচ্ছে খুব সকালে গোসল করে ঈদ গাহের মাঠে গিয়ে নামাজ আদায় করা। নামাজ আদায় শেষে একে অন্যের সঙ্গে কোলাকুলি করা। আর এই কোলাকুলি করতে গিয়ে একটু সুগন্ধি চাই। ঈদের দিনে সুগন্ধি বেশি ব্যবহার করে আতর। শুধু আতর হলেই ঈদের নামাজ আদায় পূর্ণতা পায় না। এর জন্য আরো কিছু দরকার হয়। তা হলো জায়নামাজ,টুপি ও তসবি। ঈদের কেনাকাটার শেষ মুহূর্তে তাই এইসব পণ্য ক্রয় করার জন্য ভিড় জামায় বিভিন্ন দোকানে। রাজশাহী মহানগরীর সাহেব বাজারের বড় রাস্তার পাশ্বে অস্থায়ী ছোট ছোট দোকানে এইসব পণ্য পাওয়া যাচ্ছে। এবারের ঈদের কেনাকাটায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে পুঁথি ও হাতের কাজ করা টুপি। এছাড়াও দেশি টুপির চাহিদার কদরও আছে। দাম ও নকশায় বৈচিত্র্য থাকায় এবার দেশি টুপি বেচাবিক্রি ভালো হচ্ছে বলে বিক্রেতারা জানান। পুঁথির কাজ করা টুপি ১০০ থেকে ২৫০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। ঊলের টুপি পাওয়া যাচ্ছে ২৫ থেকে ১০০ টাকার মধ্যে। বাচ্চাদের চুমকি বসানো টুপির ৬০ থেকে ১৫০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। অন্যদিকে ২০ থেকে সাড়ে ৩শ’ টাকার মধ্যে প্লাস্টিকের দানার তৈরি তসবি বাজারে বিক্রি হচ্ছে। তাছাড়া সৌদি আরব, ফ্রান্স, ভারত প্রভৃতি দেশের আতর বেশ চলছে। বাজারে এইসব আতর ছাড়াও ইরানি,ফেরদৌস,জেসমিন,দিলরুবা নানা নামের আতর ছোট বোতলে ১০০ থেকে ২৫০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। ফুল ও ফলের গন্ধ ছাড়াও আছে পারফিউম স্টাইলের আতরও অনেকেই ক্রয় করছেন। নগরীর বিভিন্ন কাপড়ের দোকানে জায়নামাজ পাওয়া যাচ্ছে। সুতি কাপড়ে তৈরি সাধারণ জায়নামাজ ৭০ থেকে ১০০ টাকা। উলের তৈরি হলে ১০০ থেকে ২০০ টাকার মধ্যে জায়নামাজ মার্কেটে পাওয়া যাচ্ছে। এর চেয়েও উন্নতমানের বেশি দামের জায়নামাজ বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। অনেকে আবার গ্রামের বাড়িতে পরিবারের সাথে ঈদ করার জন্য শহর ত্যাগ করেন। এমন সময় বাবা-মা’র জন্য ঈদের পোশাক নেওয়ার সাথে সাথে জায়নামাজ,টুপি তসবি ও আতর ক্রয় করে নিয়ে যান বলে বিক্রেতারা জানান।

পাতাটি ৩০৩ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন