logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo যৌতুকের বলি এবার রাজশাহীর শাপলা
রংপুরের বদরগঞ্জের গৃহবধূ সীমা আক্তারের মৃত্যুর মাত্র কয়েক ঘণ্টার মাথায় যৌতুকের বলি হলেন আরেক গৃহবধূ। যৌতুকের টাকা না পেয়ে রাজশাহীর গৃহবধূ শাপলাকে (৩৫) তাঁর স্বামী শাহিনুর ইসলাম শাহিন গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ করেছেন নিহতের পরিবারের সদস্যরা। গতকাল শনিবার সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা যান অগি্নদগ্ধ শাপলা। দুপুরে তাঁর মা হাসপাতাল মর্গে উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, যৌতুকের লোভে শাহিন ও তার পরিবারের লোকেরা শাপলাকে হত্যা করেছে। এ ঘটনায় শাপলার মা রোকেয়া বেগম বাদী হয়ে রাজশাহী মহানগর বোয়ালিয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় আসামি করা হয়েছে শাহিন, তার মা শামসুন নাহার ও ছোট ভাই সোহেলকে। পুলিশ গতকালই শাহিনকে গ্রেপ্তার করেছে। মামলার অন্যান্য আসামিসহ বাড়ির লোকজন এ ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে। শাহিনুর রাজশাহী জিপিওর পোস্টাল বিভাগে কাজ করে।
মামলার বাদী শাপলার মা সাংবাদিকদের জানান, প্রায় ২০ বছর আগে শাপলার সঙ্গে বিয়ে হয় শাহিনুরের। তাঁদের ঘরে দুটি সন্তান রয়েছে। যৌতুকের টাকা ও এলাকায় এক মহিলার সঙ্গে পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় প্রায়ই শাপলাকে মারধর ও নির্যাতন চালাত শাহিন। কিন্তু নির্যাতনের কথা পরিবারের কাউকে বলতেন না শাপলা। গত শুক্রবার বিকেলে যৌতুক বাবদ টাকা দাবি করে শাহিন। টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় শাপলার ওপর শারীরিক নির্যাতন চালায় সে। পরে ঘরে আটকে রেখে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় শাহিন। তাঁর চিৎকারে প্রতিবেশী লোকজন ছুটে আসে। দগ্ধ অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে শুক্রবার রাতেই শাপলাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এসে বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে শাপলা মারা যান।
এদিকে নির্যাতন ও গায়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার ঘটনায় শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে বোয়ালিয়া থানায় মামলা দায়ের করা হয়।
শাপলার মা সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, শুধু শাহিনই নয়, তার মা ও ভাই সোহেলও অহেতুক শাপলাকে মারধর করত। একই অভিযোগ করেন শাপলার বড় ভাই ঢাকায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শহিদুল ইসলাম স্বপনও।
শাপলার বাবার নাম শওকত আলী। রাজশাহীর হেতেম খাঁ ছোট মসজিদসংলগ্ন এলাকায় তাঁর বাড়ি। তিন ভাই দুই বোনের মধ্যে শাপলা ছোট। তিনি রাজশাহী লক্ষ্মীপুর গার্লস স্কুল থেকে নবম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন বলে পরিবার সূত্র জানিয়েছে।
এদিকে এ ঘটনার ব্যাপারে বোয়ালিয়া থানার ওসির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, এ ঘটনায় নারী নির্যাতন আইনে মামলা হয়েছে। মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যরা পলাতক রয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত শাহিনকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করা হয়েছে। আজ রবিবার রিমান্ডের শুনানি হবে।

পাতাটি ২৯৭ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন