logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo শিবির নেতা গোলাপের আইনজীবী নিয়োগ ও সাক্ষাতের আবেদন নাকচ
ছাত্রশিবির রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সভাপতি শামসুল আলম গোলাপের সিনিয়র আইনজীবী নিয়োগ ও রিমান্ড চলাকালে তার সঙ্গে আইনজীবীর সাক্ষাতের আবেদন নাকচ করেছেন আদালত।

আসামিপক্ষের আইনজীবীরা জানান, গ্রেফতারকৃত শিবির নেতা গোলাপ মতিহার থানায় গত ফেব্রুয়ারি মাসে দায়েরকৃত ৪ ও ৫নং মামলার আসামি। অথচ আটকের ৫৩ ঘণ্টা পর ১৪নং মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে শুক্রবার দুপুরে পুলিশ তাকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে। ওই সময় আসামি সিনিয়র আইনজীবী নিয়োগের জন্য একদিন সময় চাইলে বিচারক আবেদন নামঞ্জুর করে তার সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এ সময় আসামিপক্ষের আইনজীবীরা বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের ডিএলআর ৫৫-তে রাষ্ট্র বনাম বাংলাদেশ সরকারের মধ্যকার প্রদত্ত রায়ের উদ্ধৃতি দিয়ে রিমান্ড চলাকালে থানায় আসামির সঙ্গে সাক্ষাতের অনুমতি চেয়ে আবেদন করলে এসি প্রসিকিউশন মৃণাল কান্তি এর বিরোধিতা করেন। এতে আদালত রিমান্ড চলাকালে থানায় আসামির সঙ্গে আইনজীবীদের সাক্ষাতের আবেদনও নামঞ্জুর করেন। অবশ্য এর আগে একই মামলায় অন্য আসামিদের রিমান্ডকালে থানায় আইনজীবীর সাক্ষাতের অনুমতি দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা জানান, বিষয়টি নিয়ে উচ্চ আদালতে যাওয়া হবে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও মতিহার থানার সেকেন্ড অফিসার সোহেল রানা বলেন, রাবি ছাত্রলীগ কর্মী ফারুক হত্যা মামলা এবং হামলা-ভাংচুরের ১৪ নম্বর মামলায় গোলাপকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বুধবার নওগাঁ থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে টাঙ্গাইলের ভুয়াপুর পাতালকান্দি এলাকা থেকে র্যাব-১-এর সদস্যরা শিবির নেতা শামসুল আলম গোলাপকে গ্রেফতার করে। পরদিন বিকালে তাকে ঢাকায় সাংবাদিকদের সামনে হাজির করে র্যাব।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে গোলাপকে ঢাকা থেকে রাজশাহী আনা হয়। মহানগর পুলিশ তাকে বোয়ালিয়া মডেল থানায় রেখে গত শুক্রবার দুপুরে আদালতে হাজির করে।

পাতাটি ২৮৩ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন