logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo রাজশাহীতে বিএনপির প্রতিবাদ সভা : সরকার হামলা মামলা নির্যাতনে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে
সরকার ’৭৫-এর মতো বাকশালি কায়দায় হামলা-মামলা-নির্যাতন ও গণগ্রেফতারের মাধ্যমে দেশে ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। সাংবাদিকদের ওপরও হামলা করা হচ্ছে। দেশের মানুষ চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। তাই ডিজিটাল কারচুপির এই জালিম সরকারকে আন্দোলনের মাধ্যমে পদত্যাগে বাধ্য করা হবে। গতকাল কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে নগরীর রাজপাড়া এলাকায় কেন্দ্রীয় পার্কের গেটে বিএনপি রাজশাহী মহানগর শাখা আয়োজিত ‘সরকার কর্তৃক পরিকল্পিতভাবে দেশে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি, বিএনপির চেয়ারপার্সনকে হত্যার ষড়যন্ত্র এবং গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা থেকে শহীদ জিয়ার নাম মুছে ফেলা’র প্রতিবাদে আয়োজিত এক সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।
রাজশাহী মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলনের সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য রাখেন মতিহার থানা বিএনপির সভাপতি আনসার আলী, বোয়ালিয়া থানা বিএনপির সেক্রেটারি শফিকুল ইসলাম শফিক, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রায়হানুল আলম, বিএনপি নেতা নজরুল হুদা, নওশাদুর রহমান, যুবদল নেতা আসলাম সরকার, শওকত আলী, আব্দুল মতিন, ছাত্রদল নেতা আবুল কালাম আজাদ সুইট, মাহফুজুর রহমান রিটন, মোজাদ্দেদ জামিলী সুমন প্রমুখ।
সভায় বক্তারা বলেন, সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা শুধু বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের উপরই হামলা করছে না, তারা প্রতিদিনই গণমাধ্যম কর্মীদের ওপরও হামলা করছে। এর দ্বারা স্পষ্ট প্রমাণ হয় সরকার আবারও বাকশাল কায়েম করতে চায়। কিন্তু দেশবাসী তাদের সে স্বপ্ন কখনও পূরণ করতে দেবে না। সভায় সারাদেশে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামী লীগের সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের ব্যাপারে সরকারের নীরব ভূমিকার প্রতিবাদ জানানো হয়। রাবির ছাত্র ফারুক হোসেনের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে সরকার দেশে যে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করেছে এর নিন্দা জানান নেতারা।
যুবদলের সভা : এর আগে একই দাবিতে সোমবার বিকালে রাজপাড়া থানা যুবদলের সভাপতি শাহানুর ইসলাম মিঠুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মুরাদ পারভেজ পিন্টুর পরিচালনায় এক প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মহানগর যুবদলের সভাপতি ও বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। প্রধান বক্তা ছিলেন রাজশাহী জেলা যুবদলের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট তোফাজ্জল হোসেন তপু, বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আসলাম সরকার, রাজপাড়া থানা বিএনপির সভাপতি শওকত আলী, জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি মোস্তফা আহমেদ। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামরুজ্জামান কামরু, রবিউল আলম মিলু, বেলাল আহমেদ, নূরুজ্জামান টিটু, মুনসুর রহমান, মাহফুজুল হাসনাত প্রমুখ।
রাজশাহী জেলা বিএনপির বিবৃতি : সম্প্রতি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগনেতা নিহত হওয়ার ঘটনায় কোনো তদন্ত ছাড়াই বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতার, নির্যাতন ও মিছিলে পুলিশি হামলার ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন জাতীয়তাবাদী দল রাজশাহী জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট নাদিম মোস্তাফা ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কামরুল মনির।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনায় আমরা বিস্মিত ও ক্ষুব্ধ। বিভিন্ন এলাকায় নিরীহ ছাত্রদের ও বিরোধী দলের নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতার, হয়রানি করা হচ্ছে। বিএনপি নেতাকর্মীদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালানো হয়েছে।
সম্প্রতি ছাত্রলীগকর্মীরা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং পলিটেকনিক কলেজে দুই ছাত্রনেতাকে হত্যা করে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতারও করা হয়নি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র বকর হত্যাকাণ্ডেও কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। কিন্তু ছাত্রলীগকর্মী ফারুক হত্যার ঘটনায় সরকারের ভূমিকায় মনে হচ্ছে তারা বিরোধী দলকে উত্খাত করার কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হয়েছে। পুলিশি হামলা, মামলায় সমগ্র দেশবাসীকে আতঙ্কগ্রস্ত করে তুলেছে।
মহানগর যুবদলের নিন্দা : রাজশাহীতে রাতের আঁধারে পবা উপজেলা যুবদলের সভাপতি অধ্যাপক আবু বক্কর সিদ্দিকের বাড়িতে আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসীদের হামলা-ভাংচুর, লুটপাট ও দিনমজুর মতিনকে হত্যার প্রতিবাদ জানিয়েছেন রাজশাহী মহানগর যুবদল সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল ও সাধারণ সম্পাদক আসলাম সরকার।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ হামলাকারী সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

পাতাটি ৩১৩ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন