logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo মুসলমানদের সাথে প্রতারণা করছে সরকার: নিজামী
বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী বলেছেন, নির্বাচনী ইশতেহারে ধর্ম নিরপেক্ষতার কথা বলে ধর্মপ্রাণ মুসলমানের সাথে প্রতারণা করে ৫ম সংশোধনীর মাধ্যমে দেশে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি বন্ধের পাঁয়তারা করছে সরকার। তবে বর্তমান সরকারের এই ষড়যন্ত্র দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ সফল হতে দেবে না। ইসলামী শক্তি দিয়ে এই অপচেষ্টা প্রতিহত করা হবে। ধর্মীয় রাজনীতি নিষিদ্ধের ষড়যন্ত্র,

ফারাক্কা ও তিস্তা বাঁধ দিয়ে দেশকে মরুকরণ, ভারতকে ট্রানজিট, টিপাইমুখ বহুমুখী প্রকল্প বাস্তবায়ন এবং বন্দর সুবিধা দেয়ার প্রতিবাদে আজ রোববার বিকেলে রাজশাহী মহানগর জামায়াতে ইসলামী আয়োজিত ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে এক জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

রাজশাহী মহানগর জামায়াতে ইসলামীর আমির আতাউর রহমানের সভাপতিত্বে জনসভায় নিজামী বলেন, বর্তমান সরকার হীনমন্যতার পরিচয় দিয়ে দেশকে সেক্যুলার রাষ্ট্রে পরিণত করতে বহুমুখি ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করতে ধর্মহীন শিক্ষা ব্যবস্থা চালুর পাঁয়তার করছে। তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকারের এক বছরের শাসনামলে সারাদেশ দুঃশাসনের কবলে পড়েছে। দেশের বিচারালয় সরকারের পকেট কার্যালয়ে পরিণত হয়েছে। এক বছরে রেকর্ড পরিমাণ কর্মকর্তাকে ওএসডি করা হয়েছে। ক্ষমতায় আসার পরদিন থেকে প্রতিদিন সচিবালয়ে রদবদল করে চলেছে। এক বছরেই বর্তমান সরকার দেশ চালাতে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। তারা নিজেদের রাজনৈতিক দলের মধ্যে শৃংখলা ফিরিয়ে আনতে পারছে না। নিজেদের ছাত্র সংগঠনের কোন্দলে বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। সাধারণ ও নীরিহ ছাত্রদের প্রাণ দিতে হচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। নিজামী বলেন, মহাজোট সরকার একবছরে তিন হাজার মানুষ খুন করেছে। আহত হয়েছে কয়েক হাজার মানুষ এবং অন্তত এক হাজার নারী ধর্ষিত হয়েছে।

ফখরুদ্দিন-মঈনের ডিজিটাল কারচুপির মাধ্যমে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসেছে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, এ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাস এখন শুরু হয়েছে ডিজিটাল কায়দায়। পণ্যের দাম কমাতে পারেনি। দিন দিন চাল-ডালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় চালের দাম বাড়ছে। ভারতের সাথে চুক্তি করে দেশকে বিনাদামে বিক্রি করে দেয়া হয়েছে।

এ সরকারের জুলুম নির্যাতন ও ভারতের কাছে দেশ বিক্রির ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে আগামীর আন্দোলন সংগ্রামে সবাইকে শরীক হওয়ার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, এখন আন্দোলন ছাড়া আর কোন পথ খোলা নেই। আন্দোলনের মাধ্যমেই ভারতের তাবেদার সরকারকে বিদায় করতে হবে।

জনসভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জামায়াতের নায়েবে আমির মাওলানা দেলোয়ার হোসেন সাঈদী, সেক্রেটারী জেনারেল আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ, সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল মো. কামারুজ্জামান, এটিএম আজহারুল ইসলাম, অধ্যাপক মুজিবুর রহমান, ডা. শফিকুর রহমান, কেন্দ্রীয় প্রচার বিভাগের সেক্রেটারী অধ্যাপক তাসনিম আলম, ঢাকা মহানগরীর আমির মাওলানা রফিকুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য নূরুল ইসলাম প্রমুখ।

এর আগে বেলা ২টা থেকে শুরু হওয়া জনসভায় উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত জামায়াতের জেলা আমির ও ছাত্রশিবিরের নেতারা বক্তব্য রাখেন। জনসভায় যোগ দিতে রাজশাহী বিভাগের ১৬ জেলার নেতাকর্মীরা মাদ্রাসা মাঠে অংশ নেন।

পাতাটি ৩২৮ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন