logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo রাজশাহীতে দিনমজুরের কাজ নেই
রাজশাহী জেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে প্রতিদিন শত শত দিনমজুর মাঘের তীব্র শীত উপেড়্গা করে শ্রম বিক্রি করতে আসে রাজশাহী মহানগরীর মজুরের হাটে। কিন্তু সম্প্রতিকালে কাজ না পেয়ে অধিকাংশই ফিরে যাচ্ছে বাড়িতে। ওরা আসে কুয়াশাচ্ছন্ন কাক ডাকা ভোরে। বসে থাকে দুপুর পর্যনত্ম। বেশিরভাগই জড়ো হয় নগরীর বিন্দুর মোড় ও লক্ষ্মীপুর মোড় এলাকায়। বেশিরভাগ আসে ঝুড়ি-কোদাল নিয়ে ও সাইকেলে চেপে। কেউবা আসে বাসে। রাসত্মার পাশে বসে থাকে খদ্দেরের অপেড়্গায়।

এসব দিনমজুর জানান, আগের মত এখন আর মজুরদের কাজ নেই। আগে বিভিন্ন নির্মাণ কাজের ঠিকাদাররা আসতো। এখন তারাও আসে না। এখন ব্যক্তিগত কাজে লোকজন মজুর নিয়ে যায়। এসব মজুরের প্রতিদিনের ভাড়া একশ’ থেকে পৌনে দুইশ’ টাকা। নিয়মিত কাজ না পাওয়ায় কম মজুরিতেও অনেকে কাজ করতে বাধ্য হচ্ছেন। ওরা মাটি কাটে, রাজমিস্ত্রির কাজ করে, যোগান দেয়। নানা নির্মাণ কাজও করে। রাজশাহীর বাজারে প্রতিদিন মজুর আসে বিভিন্ন উপজেলা থেকে। এছাড়া বেশ কিছু মজুর আসে নওগাঁ জেলা থেকে।

রবিবার পবার দেওয়ান পাড়ার দিনমজুর শফিকুল জানান, এলাকায় কাজ নেই, মাঠে এখন মজুর লাগে না বলে তারা পেটের দায়ে শহরে এসেছে কাজের জন্য। কিন্তু সকাল থেকে দুপুর পর্যনত্ম বসে থেকেও কোন কাজ না জোটায় এখন খালি হাতে বাড়ি ফেরা ছাড়া উপায় নেই। কাজের আশায় ছুটে আসা আব্বাস জানালেন, তার ড়্গোভ আর দু:খের কথা। তিনি বলেন, কাজ না পেলে আগের দিনের আয়ের টাকা দিয়েই কয়েকদিন চালাতে হচ্ছে সংসার। খালি হাতে বাড়ি ফিরে গেলে কেউই তাকে ভালো চোখে দেখে না।

এখানে বসে থাকা প্রতিটি মজুরেরই এমন অবস্থা।

এর উপর রাজশাহীসহ উত্তরাঞ্চলে ঘন কুয়াশা এবং প্রচন্ড শীত অব্যাহত থাকায় কয়েক দিন থেকে তাদের কপালে একবারেই কাজ মিলছে না। গত তিন দিন রাজশাহীতে সূর্যের মুখ দেখা যায়নি। গতকাল রাজশাহীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১০.২ ডিগ্রী সেলসিয়াস।

পাতাটি ২৮৮ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন