logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo ৫ বছর পর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কাউন্সিল
প্রায় ৫ বছর পর আগামী ২৭ জানুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এ কাউন্সিলে গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতে জোর তৎপরতা শুরু করেছে ক্যাম্পাসের ছাত্রলীগ নেতারা। ইতিমধ্যেই তারা রীতিমতো প্রচার-প্রচারণাও শুরু করে দিয়েছেন। এই কাউন্সিলের মাধ্যমে দীর্ঘদিন পর ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের নতুন নেতৃত্বের সূচনা হবে।
সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ পেতে অনেকেই কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। বিভিন্ন সংকটকালে যারা ইসলামী ছাত্র শিবিরের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে ছাত্রলীগকে ক্যাম্পাসে টিকিয়ে রেখেছেন তাদের কয়েকজনের ব্যাপারে আলাপ-আলোচনা চলছে বিভিন্ন মহলে।
এ ড়্গেত্রে বর্তমান কমিটির সভাপতি ইব্রাহীম হোসেন মুনের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত আওয়াল কবীর জয় ও সাধারণ সম্পাদক আয়েন উদ্দিনের ঘনিষ্ঠ আহম্মেদ হোসেন সভাপতি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে আছেন। এছাড়া বর্তমান কমিটির আইন সম্পাদক আরিফু্‌্‌জ্জামান ইভেল রনিও সভাপতি পদ লাভের জন্য তৎপরতা শুরু করেছেন।
তবে সাধারণ সম্পাদক পদ নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ধূম্রজালের। কর্মীরা এবার কাউন্সিলে একজন সৎ ও যোগ্য কাউকে এ পদে চাইছেন।
এড়্গেত্রে কেন্দ্রীয় কমিটির সমর্থন ও কর্মীদের চাহিদা বিচারে এগিয়ে আছেন আকিবুর রহমান আকিব। তিনি দলের বিভিন্ন ক্রান্তিকালে দলীয় কর্মীদের বিভিন্নভাবে সংগঠিত করেছেন। তবে পদের ব্যাপারে তার কোনো আগ্রহ ছিল না কখনোই। সব সময় একজন নিবেদিতপ্রাণ কর্মী হিসেবে কাজ করে গেছেন।
এছাড়া অনেক ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ উঠলেও আকিবুর রহমান এ ব্যাপারে একেবারেই পরিষ্কার। তাই সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তাকেই যোগ্য বলে মনে করা হচ্ছে।
সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে অন্য যারা দৌড়-ঝাঁপ করছেন তারা হলেন আবু হোসাইন বিপু, আমিনুর রহমান মিঠু, সুমনকান্তি বাড়ই, মিজানুর রহমান মিঠু।
তবে কেন্দ্রীয় নেতাদের পছন্দের তালিকায় আবু হোসাইন বিপুর নাম থাকায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে বড় ধরনের পরিবর্তন আসতে পারে বলে ধারণা করছেন স্থানীয় রাজনীতিবিদরা। এ ড়্গেত্রে আকিবুর রহমান আকিবকে সভাপতি ও আবু হোসাইন বিপুকে সাধারণ সম্পাদক করা হতে পারে।
কাউন্সিলের ব্যাপারে বর্তমান কমিটির সভাপতি ইব্রাহিম হোসেন মুন বলেন, ক্যাম্পাসে একটি যোগ্য নেতৃত্ব গড়ে উঠুক এটাই কাম্য। তিনি বলেন, ক্যাম্পাসে শিড়্গার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে এবং প্রগতিশীল কর্মকাণ্ড অব্যাহত রাখতে পারে এমন কাউকে গুরুত্বপূর্ণ পদ দেয়া দরকার।
বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক আয়েনউদ্দিন বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কাউন্সিল হওয়া জরুরি। যতো তাড়াতাড়ি কাউন্সিল হবে ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ ততোই সুসংগঠিত হবে। তিনি জরুরি অবস্থা, রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা ও নানা অনাকাঙিড়্গত ঘটনার কারণে দীর্ঘদিন কাউন্সিল হয়নি বলে মন্তব্য করেন।

পাতাটি ৩৬৫ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন