logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo মিঠাপুকুর বাসস্ট্যান্ডে সুপারির হাট : অসহনীয় যানযট
উত্তর জনপদের বৃহৎ বাণিজ্যকেন্দ্র রংপুরের শঠিবাড়ীতে প্রতি হাটবার অসহনীয় যানযটের কারণে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে সাধারণ জনগন। বন্দরের কেন্দ্রস্থলে ঢাকা-রংপুর মহসড়কের উপর বাস স্ট্যান্ডের জায়গা দখল করে সুপারি হাট বসার জন্য যানযটের তীব্রতা বেড়েছে বলে মনে করছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।



জানাযায়, প্রতি সপ্তাহে রবি ও বৃহস্পতিবার বসে শঠিবাড়ী হাট। হাটে স্থানীয় জনসাধাণের পাশাপাশি দিনাজপুর ও গাইবান্ধাসহ বিভিন্ন এলাকার লোকজন কেনা বেচা করার জন্য হাটবার করে ভীড় জমান এই সনামধন্য হাটটিতে। এর ফলে হাটবার করে যানযটের তীব্রতা হয় লক্ষ্য করার মত। এলাকাবাসীর অভিযোগ, অতিরিক্ত চাঁদা আদায় করলেও কমিটি হাটটির তেমন উন্নয়নের উদ্যোগ গ্রহণ করেননি।



প্রতি মৌসুমে সুপারি কেনা বেচার জন্য শঠিবাড়ী হাট পরিণত হয় জনসমুদ্রে। যথাযথ কতৃপক্ষের সু-নজর না থাকায় সুপারি হাটটি বাস স্ট্যান্ডেই দীর্ঘদিন থেকে বসে আসছে। আশপাশের ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, সুপারি হাটটির কারণে হাটবারে তাদের ব্যবসার বড় ধরনের ক্ষতি হচ্ছে। এ ব্যাপারে এম. কে ট্রেডার্সের সত্বাধিকারী এনামুল হক তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমরা লক্ষ লক্ষ টাকা দিয়ে ব্যবসা করি অথচ সুপারি হাটটি বসার কারণে আমাদের ব্যবসা করা দুঃসাধ্য হয়ে দাড়িয়েছে।



সুপারি বিক্রি করতে আসা মির্জাপুর ইউনিয়নের শ্রী কৈলাশ চন্দ্র বর্মন বলেন, এখানে অনেক কষ্টে সুপারি কেনা-বেচা করতে হয়। ওষুধ ব্যবসায়ী আব্দুল কাদের বলেন, মাসে ৮ দিন হাটবার ওই ৮ দিন আমার ব্যবসার খুবই ক্ষতি হয়। শঠিবাড়ী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সিনিয়ন শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, মহাসড়কের উপর হাটটি বসার কারনে ব্যবসা-বাণিজ্যের ও সাধারণ পথচারীদের চলাচলে খুবই অসুবিধা হচ্ছে। সুপারি হাটটি অন্যত্র সরিয়ে নেয়া দরকার।



বড় দরগাহ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ দ্বীন মুহাম্মদ আলী যানযটের কথা স্বীকার করে বলেন, প্রত্যেক হাটবার করে ওখানে যানযট নিরসনের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। সুপারি হাটটি অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার জন্য জোর প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। এ ব্যাপারে শাঠিবাড়ী হাট ইজাদার সফিয়ার রহমান সর্দারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, হাটটির কারনে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। আমাদের পরিকল্পনা রয়েছে হাটটি অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার। আমরা সবাই মিলে যথাযথ কতৃপক্ষের অনুমতিক্রমে হাটটি কোন উন্মুক্ত স্থানে সরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা করবো।

পাতাটি ৩৫৮ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন