logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo জামায়াত-শিবিরের সঙ্গে আপোস করলেন না লিটন
নির্বাচনী সংলাপ অনুষ্ঠানে জামায়াত-শিবিরকে প্রশয় দেয়ার কারণে বেসরকারি টেলিভিশন এসএ টিভির অনুষ্ঠান বয়কট করেছেন নাগরিক কমিটি মনোনীত মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। অনুষ্ঠানের মাঝখানে বয়কট করে চলে যাওয়ার সময় তিনি দৃঢ় কণ্ঠে উচ্চারণ করেন, ‘জামায়াত-শিবির যেখানে থাকবে, সেখানে কোনো আপোস নয়। যুদ্ধাপরাধীদের সঙ্গে কোনো আপোস নয়।’ তার সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে জামায়াত-শিবির ছাড়া বেশিরভাগ দর্শক অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন।
রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচন উপলক্ষে ‘জনগণের মুখোমুখি জনপ্রতিনিধিরা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে এসএ টেলিভিশন। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ অডিটোরিয়ামে আয়োজিত অনুষ্ঠানটি রাত সাড়ে ৮টা থেকে সরাসরি সম্প্রচারিত হচ্ছিল বেসরকারি টেলিভিশনে।
রাত ৯টা ১৫ মিনিটে এক দর্শক প্রশ্ন করেন শিক্ষাঙ্গনে ছাত্র রাজনীতির নামে সন্ত্রাসের বিষয়ে মেয়র প্রার্থীরা কী পদক্ষেপ নেবেন। এ প্রসঙ্গে কথা বলতে অনুষ্ঠানের সঞ্চালক প্রথমেই সুযোগ দেন সদ্য বিদায়ী মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে। এসময় লিটন বলেন, ‘শিক্ষাঙ্গনে ছাত্র রাজনীতির নামে সন্ত্রাস মূলত জাতীয় সমস্যা। বিশেষ করে যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর নামে যারা শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস করছে, রগ কাটার রাজনীতি চালু করেছেন, মানুষ হত্যা করেছে তারাই এজন্য দায়ী।’
লিটনের বক্তব্য শেষ না হতেই এসময় দর্শক সারি থেকে জামায়াত-শিবিরকর্মীরা চিৎকার শুরু করে। এসময় এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘এখানে যদি কোনো জামায়াত-শিবিরের লোকজন থাকে তবে আমি অনুষ্ঠান বয়কট করবো।’ তার এ মন্তব্যে জামায়াত-শিবিরকর্মীরা আরো উত্তেজিত হয়ে ওঠে। তাৎক্ষণিকভাবে লিটন অনুষ্ঠান বয়কট করেন। মঞ্চ থেকে নামার আগে তিনি দৃঢ় কণ্ঠে উচ্চারণ করেন, ‘জামায়াত-শিবির যেখানে থাকবে, সেখানে কোনো আপোস নয়।’ তার সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে মেডিকেল কলেজ অডিটোরিয়াম থেকে বের হয়ে যান বেশিরভাগ দর্শকও। বাধ্য হয়ে অনুষ্ঠান সম্প্রচার বন্ধ করে দেয় এসএ টিভি কর্তৃপক্ষ।

পাতাটি ২৫৬ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন