logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo গাজায় যুদ্ধবিরতি শুরু
আটদিন ধরে সংঘাত চলার পর ফিলিস্তিনের গাজা নিয়ন্ত্রণকারী হামাস ও ইসরায়েলি বাহিনীর মধ্যে যুদ্ধবিরতি কার্যকর হয়েছে। মিশরের মধ্যস্থতায় বুধবার রাত থেকে শুরু হওয়া যুদ্ধবিরতিতে গাজায় সব ধরনের সহিংসতা বন্ধে সম্মত হয়েছে ইসরায়েল। অপরদিকে এসময় ইসরায়েল সীমান্তে আক্রমণ বন্ধ রাখবে বলে জানিয়েছে হামাস। তবে উভয়পক্ষ থেকেই পরস্পরের বিরুদ্ধে যুদ্ধবিরতি ভঙ্গের অভিযোগ পাওয়া গেছে এর মধ্যেই। বুধবার কায়রোতে এক সংবাদ সম্মেলনে যুদ্ধবিরতি চুক্তির ঘোষণা দেন মিশরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কামেল আমার। সেখানে উপস্থিত ছিলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনও।

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর কার্যালয় থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রের পরামর্শে মিশরের দেয়া যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে সমর্থন দেয়ার কথা জানানো হয়। যুদ্ধবিরতি চুক্তি হওয়ার পরে গাজায় আকাশে ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে উল্লাস প্রকাশ করে ফিলিস্তিনিরা। এর ফলে গাজায় ইসরায়েলের আক্রমণ ব্যর্থ হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন হামাস নেতা খালেদ মেশাল। গত সপ্তাহে গাজায় ইসরায়েলি হামলায় ১৬২ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়। এদের মধ্যে ৩৭ জনই শিশু। অপরদিকে ইসরায়েল সীমান্তে হামাসের পাল্টা হামলায় পাঁচজন ইসরায়েলি নিহত হয়। বুধবার রাতে যুদ্ধবিরতি শুরুর আগের মুহূর্তেও উভয়পক্ষের মধ্যে গুলিবিনিময় অব্যাহত ছিলো। তবে যুদ্ধবিরতি শুরুর পরে তার শর্তভঙ্গের বড় কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

এর আগে তেল আবিবে একটি বাসে বোমা বিস্ফোরণে তিনজন আহত হয়। ইসরায়েলি হামলায় ১৩ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয় এদিন। যুদ্ধবিরতি চুক্তি অনুযায়ী গাজায় জল, স্থল ও আকাশ থেকে হামলাসহ নির্ধারিত লক্ষ্যে হামলা চালানো বন্ধ রাখবে ইসরায়েল। অপরদিকে গাজার ইসরায়েলি সীমান্তে রকেট হামলাসহ সব ধরনের হামলা বন্ধ রাখবে হামাসসহ সব ফিলিস্তিনি সংগঠন। তবে যুদ্ধবিরতি শুরুর পরেও গাজা থেকে ইসরায়েলে কিছু রকেট হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ করেছে ইসরায়েলি পুলিশ, কিন্তু এতে কেউ আহত বা বড় কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে জানানো হয়।

পাতাটি ২৮৫ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন