logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo কর্মকর্তার পায়ে ধরলেন কৃষক !
'স্যার ওই ৯০ শতক ভুঁইই মোর সম্বল। ওই জায়গায় ইটখোলা হইলে মোর ওই ভুঁইয়োত আর আবাদ হইবে না। আর ভুঁইয়োত ফসল না হইলে বউ-ছাওয়াক নিয়া মোক না খায়া মরির নাগবে। তখন পথোত বসা ছাড়া মোর কোনো উপায় থাকবি না।' রাজশাহী বিভাগীয় পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালককে কাছে পেয়ে তিন ফসলি আবাদি জমির পাশে নির্মাণাধীণ একটি ইটখোলা বন্ধের দাবিতে দুই পায়ে জড়িয়ে ধরে এভাবে আকুতি জানান ক্ষুদ্র কৃষক মনছুর আলী।

গত সোমবার দুপুরে এলাকাবাসীর দেওয়া অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য বগুড়ায় অবস্থিত রাজশাহী বিভাগীয় পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. সাইফুল্লাহ তালুকদার সৈয়দপুরের কামারপুকুরে নির্মাণাধীন মেসার্স এ এন ব্রিকস নামের একটি ইটখোলা সরেজমিনে পরিদর্শনে এলে এ ঘটনা ঘটে। উল্লেখ্য, শুরু থেকেই আবাদি জমিতে ইটখোলা নির্মাণের বিরোধিতা করে আসছে এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে তারা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগপত্রও দেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বগুড়ায় অবস্থিত রাজশাহী বিভাগীয় পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ওই ইটখোলার মালিক ও অভিযোগকারীদের তাঁর দপ্তরে ডেকে পাঠান। একই চিঠিতে তিনি অভিযোগের বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত মালিককে ইটখোলার নির্মাণকাজ বন্ধের নির্দেশ দেন। কিন্তু ওই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইটখোলা নির্মাণকাজ অব্যাহত থাকলে সোমবার তিনি সরেজমিনে তদন্তে আসেন।

পাতাটি ২৭৩ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন