logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo রাসিকের দুই নম্বর ওয়ার্ড ড্রেনেজ ও রাস্তা ঘাটের বেহালদশা
রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সমস্যাবহুল ওয়ার্ডগুলোর মধ্যে অন্যতম দুই নম্বর ওয়ার্ড। জলাবদ্ধতা ও রাস্তা ঘাটের বেহালদশা এই ওয়ার্ডের মূল সমস্যা। ঘণ্টা খানেক বৃষ্টি হলেই ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় সৃষ্টি হয় ব্যাপক জলাবদ্ধতা।
জলাবদ্ধতার সাথে পাল্লা দিয়ে চলে রাস্তাগুলোর পিচ-খোয়া উঠে গিয়ে গরুর গাড়ির রাস্তায় পরিণত হওয়ার প্রতিযোগিতা। সবচেয়ে বেহালদশা ওয়ার্ডের রানীদিঘী, বিদিরপাটাল ও মোল্লাপাড়া বাঁশের আড্ডা থেকে মূল সিটি বাইপাস পর্যন্ত সংযোগ সড়কটির। এই এলাকাগুলোতে একটু বৃষ্টি হলেই রাস্তার বিভিন্ন স’ানে জমে যায় হাঁটু পানি । সেই সাথে পানি জমা রাস্তাগুলোতে বিভিন্ন যানবাহন চলাচলের ফলে বড় বড় গর্ত ও খাদ তৈরি হয়ে সৃষ্টি হয় ভয়ংকর পরিসি’তির। এমনকি রাস্তার গর্তগুলোর কারণে প্রায়ই ঘটে থাকে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। সবচেয়ে সমস্যায় পড়তে হয় স্কুল, মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাওয়া শিশু শিক্ষার্থীদের, কারণ প্রতিটি শিশুর পরিবারের সামর্থ্য নেই তাদের সন্তানদের রিক্সা বা ভ্যানে করে স্কুলে পাঠানোর। ফলে জলমগ্ন অবস’ায় শিশুরা হেঁটে রাস্তা পার হতে গিয়ে পড়ছে বিপাকে, কখনো বা শিকার হচ্ছে দুর্ঘটনা।

দুই নম্বর ওয়ার্ডের আরো একটি বড় সমস্যা হলো ড্রেনেজ সমস্যা। পরিকল্পনা মাফিক ড্রেনেজ ব্যবস’া-পনা না থাকায় এবং ড্রেনগুলোর গভীরতা কম হওয়ায় পানি নিষ্কাষণের সমস্যা রয়েছে। ফলে ড্রেনের পানি রাস্তায় জমেও বিভিন্ন স’ানে জলাবদ্ধতা সৃষ্টির হয়। কোর্ট কলেজের সামনে থেকে উত্তরে সাঁওতাল পাড়া পর্যন্ত চলে যাওয়া ড্রেনটির গভীরতা কম হওয়ায় অল্প বৃষ্টিতেই পানি ওভারফ্লো হয়ে রাস্তায় চলে আসে প্রায়ই। এছাড়াও মোল্লাপাড়া বাঁশের আড্ডা থেকে শুরু করে উপজাতি কালচারাল একাডেমি পর্যন্ত রাস্তার ড্রেনের অবস’াও অত্যন্ত নাজুক। ড্রেন রয়েছে তবে সেই ড্রেনের গভীরতা অত্যন্ত কম হওয়ায় এবং ভেঙে-চুরে যাওয়ায় অল্প বৃষ্টি ও অতিবৃষ্টিতে রাস্তায় পানি জমে জলাবদ্ধার সৃষ্টি হয় যখন তখন।
এই ওয়ার্ডের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে কথা হয় ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো: নোমানের সাথে। তিনি সোনালী সংবাদের প্রতিবেদককে জানান বর্তমানে দুই নম্বর ওয়ার্ডের প্রধান বা মূল সমস্যা হলো ভাঙাচোরা রাস্তা-ঘাট ও অপরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস’া।

তিনি আরো জানান মূলত কোর্ট স্টেশন থেকে মোল্লাপাড়া বাশেঁর আড্ডা হয়ে ঠাকুরমারা রাস্তাটির অবস’া বড়ই করুণ, কখনো রাস্তার ভাঙা গর্তে আবার কখনোবা পানি জমে থাকায় ড্রেন ও রাস্তার তফাৎ বুঝতে না পারায় প্রায়ই ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। আশংকা রয়েছে যে কোন মুহূর্তেই আরো বড় ধরনের দুূর্ঘটনা ঘটার। ওয়ার্ড কাউন্সিলর নোমান আরো বলেন বহুদিন আগেই এই রাস্তাটির টেন্ডার হওয়ার কথা থাকলেও কি এক অজানা কারণে তা হয়না। এ বিষয়ে কাউন্সিলর নিজে উদ্যোগী হয়ে সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করলে কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ তাকে জানান টেন্ডারটি সিটি কর্পোরেশন থেকে বর্তমানে আরডিএ’র নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। ফলে জট পেকে যাওয়ায় রাস্তাটির টেন্ডার এখনও হয়নি।
তবে সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন নিজে আশ্বাস দেওয়ায় ভুক্তভোগী জনগণ আশা করছে দ্রুতই ভাঙাচোরা রাস্তাগুলো মেরামতের জন্য টেন্ডার হয়ে যাবে এবং রাস্তার সংস্কার কাজও দ্রুত শুরু হবে। এছাড়াও ওয়ার্ডে নিয়মিত খেলাধুলার অনুশীলনের জন্য নির্দিষ্ট কোন খেলার মাঠ নেই যা একটি অন্যতম সমস্যা। খেলার মাঠের সমস্যা নিয়ে কথা হয় দুই নম্বর ওয়ার্ডের ফুটবলার নাসিম চাকমার সাথে তিনি প্রতিবেদককে জানান দুই নম্বর ওয়ার্ডের একটি নিজস্ব খেলার মাঠ না থাকায় আমাদের খেলোয়াড়দের বহুদূরে গিয়ে ফুটবল-ক্রিকেটসহ বিভিন্ন খেলার পরিচর্যা করতে হয় যা অত্যন্ত কষ্টকর এবং ব্যয় বহুল একটি ব্যাপার । প্রবীণ ফুটবলার নাসিম চকমা আরো বলেন আমি কেন্দ্রিয় ইদগাহ মাঠে গিয়ে ফুটবল অনুশীলন করি, কিন’ আমাদের ওয়ার্ডে একটি মাঠ থাকলে আমি নিজে অনুশীলনের পাশাপাশি উদিয়মান তরুণ ফুটবলারদেরও ফুটবল খেলার প্রতি আগ্রহী করে তুলতে পারতাম। নিজের মাঠ না থাকায় বিভিন্ন খেলাধুলা এবং কাউন্সিলর কাপ ফুটবলের জন্য ওয়ার্ড দলের অনুশীলন করাতে হয় ধার করা কোর্ট কলেজের ছোট মাঠে।

কাউন্সিলর নোমান বলেন, ওয়ার্ডে শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণের জন্য পর্যাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে সরকারি ২টি, বেসরকারি ২টি এবং ছিন্নমূল শিশুদের জন্য একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় । সেই সাথে কোর্ট মহাবিদ্যালয় নামে একটি ডিগ্রি কলেজও রয়েছে। কাউন্সিলর দাবি করেন, দুই নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমানে আইন-শৃঙ্খলা পরিসি’তি বেশ ভালো এবং মাদকের ছড়াছড়িও নেই।
তাই এই ওয়ার্ডের বসবাসকারি জনগণ স্বপ্ন দেখছে রাস্তাঘাট ও ড্রেনেজ ব্যবস’াপনা সমস্যার দ্রুত সমাধান করবে রাসিক। নগরীর অন্যান্য ওয়ার্ডগুলোর মতো এই ওয়ার্ডে সুষম উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকলে, সেইদিন আর বেশী দূরে নয় যেদিন দুই নম্বর ওয়ার্ড রাজশাহী মহানগরীর একটি আদর্শ ওয়ার্ডে পরিণত হবে।

পাতাটি ৩০৫ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন