logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo রাজশাহীর বাজারে উঠতে শুরু করেছে পাকা আম ॥ তবে গতবারের চেয়ে দাম চড়া
আমের নগরী রাজশাহীর স্থানীয় বাজারে উঠতে শুরু করেছে পাকা আম। তবে দাম বেশ চড়া সাহেব বাজারসহ বিভন্ন বাজারে আমের দোকানগুলোতে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় শুধুমাত্র গোপালভোগ ও রাণীপছন্দ আম বাজারে এসেছে। যেগুলো প্রতিকেজি ৪৫-৫০টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে, আর প্রতিমণ বিক্রি হচ্ছে ১৮০০-২০০০টাকা দরে। এ বিষয়ে কথা হয় সাহেব বাজারের বিশিষ্ট আম ব্যাবসায়ী আইনুল ও আব্দুল কাদিরের সঙ্গে।

তারা প্রতিবেদককে জানান বর্তমানে যে আমগুলো বাজারে এসেছে সেগুলো সবই স্থানিয় বাগান থেকে আসছে, নগরীর কাশিয়াডাঙ্গা, কোর্ট, বিনোদপুর ও কাজলা বাগান থেকে। তারা আরো জনান গত বছর বৈশাখের শেষদিকে আম বাজারে চলে এলেও এবার জৈষ্ঠ্য মাসে আম বাজারে এসেছে, দেরিতে আম বাজারে আসায় গতবছর যেখানে গোপালভোগ আম শুরুতেই ৩৫-৪০ টাকা দরে বিক্রি করেছেন সেখানে এবার বিক্রি করতে হচ্ছে ৪৫-৫০ টাকা দরে। অর্থ্যাৎ এবার গতবারের তুলনায় আমের দাম কেজি প্রতি ১০ থেকে ১৫ টাকা আর মণপ্রতি ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা বেশি। এবার সময়মত প্রচুর বৃষ্টিপাত হওয়ায় আমের সাইজ অন্য বারের চেয়ে বেশ বড় হয়েছে এবং আমের ফলনও বিঘা প্রতি বেশ ভালো হবে বলে আশা করছেন আম বাগানের মালিকরা।

আমের দাম বেশী হওয়ায় অনেক ক্রেতাই আমের দোকান ও আড়ত গুলোতে ভিড় করলেও সে অনুপাতে বিক্রি হচ্ছে কম, তবে এ বিক্রি কম হওয়ায় ব্যবসায়ীরা হতাশ নন। বরং তারা আশা প্রকাশ করে বলছেন মাত্র দুই থেকে তিন দিন হলো বাজারে পাকা আম উঠেছে তাই বিক্রি কিছুটা কম, আগামি ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যেই বাজারে মধুমাসে আম প্রেমিদের বহু আকাক্ষিত খিরসাপাত, ল্যংড়া, কুয়াপাহাড়ী, দুধস্বর, আর-জান, লক্ষণভোগ, মোহনভোগসহ বিভিন্ন দেশি জাতের আমগুলো আসতে শুরু করবে, তখন বাজারে আমের বেচাকেনা বহুগুনে বেড়ে যাবে, দামও অনেকটা ক্রেতাদের আয়ত্বের মধ্যে আসবে। আর সেই সাথে শুরু হবে ব্যাবসায়ীদের দেশের বিভিন্ন জেলায় আম বিক্রয়ের ব্যস্ততা।

অবশ্য তখন শুধু যে আম ব্যবসায়ীরা এক জেলা থেকে অন্য জেলায় আম পাঠাবে তা নয়, এ অঞ্চলের প্রতিটি মানুষই তাদের সাধ্যমত আম দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা নিজ নিজ প্রিয়জনকে পাঠাতে চেষ্টা করবে। কারণ আম ভালবাসেনা এমন বাংলাদেশী খুজে পাওয়া মুশুকিল, আর সে আম যদি হয় দেশের উত্তরবঙ্গের অর্থ্যাৎ রাজশাহী-চাপাইনবাবগঞ্জের তাহলে তো কথাই নেই।




সুত্র : সোনালী সংবাদ

পাতাটি ৩৩৭ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন