logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo রাসিক’র বস্তি উচ্ছেদ বন্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের
রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের বস্তি উচ্ছেদ অভিযান বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি ফরিদ আহম্মেদ ও বিচারপতি ফারহা মাহাবুব-এর সমন্বয়ে গঠিত একটি বেঞ্চ গতকাল ৩ মাসের জন্য বস্তি উচ্ছেদ বন্ধে এই স্থগিতাদেশ দেন।
রাজশাহী মহানগরীর মহিষবাথান এলাকার মৃত মজ্জেম হোসেনের পুত্র বখতিয়ার ও একই এলাকার আজহারুল ইসলামের পুত্র আহসান কামাল বিপ্লব গতকাল ঢাকা হাইকোর্টে রাসিক’র বস্তি উচ্ছেদ বন্ধে একটি রিট আবেদন করেন। রিটে বিবাদী করা হয়েছে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়নের সচিব, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খারুজ্জামান লিটন, রাজশাহী জেলা প্রশাসক দিলোয়ার বখ্ত ও পশ্চিম রেলের বিভাগীয় স্টেট অফিসারকে (পাকশি)। গতকাল থেকে হাইকোর্টের এই আদেশ কার্যকর হয়েছে। হাইকোর্টের এই রায় গতকাল ঢাকা থেকে ফ্যাক্সযোগে রাজশাহীর পত্রিকা অফিসগুলোতে পাঠানো হয়।
গত ১৯ এপ্রিল সকালে রাসিকের ম্যাজিষ্ট্রেট সাদেকুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ ও ভাড়াটে শ্রমিক ওই বস্তি ভাঙ্গা শুরু করে। প্রথম দিকে বস্তিবাসী অনেক অনুরোধ করে বস্তি ভেঙ্গে তাদের গৃহহারা না করার জন্য। কিন্তু তাতে কোন কাজ হয়নি। এক পর্যায়ে বস্তিবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে এবং আইনশৃংখলা বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় দুটি মামলা হয়। মামলায় ১০ জনকে গ্রেফতারও করা হয়। পরবর্তীতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বাংলাদেশ রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের কাছ থেকে লিজ না নিয়েই রাজশাহী মহানগরীর বহরমপুর থেকে কোর্ট স্টেশন এলাকার বস্তিবাসীদের উচ্ছেদ করে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন। বস্তিবাসীদের উচ্ছেদ করে সেখানে সবুজায়ন বিনোদন স্পট করার পরিকল্পনা রয়েছে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের। প্রায় ৩ হাজার মানুষকে গৃহহারা করে সেখানে বিনোদন স্পট করার বিরোধিতা ও গৃহহীন বস্তিবাসীদের পুনর্বাসন এবং গ্রেফতারকৃতদের নিঃর্শত মুক্তির দাবীতে নগরীর কোর্ট টুলটুলিপাড়া, লক্ষ্মীপুর মোড় ও নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে মানববন্ধন কর্মমূচি পালন করে তারা। রাসিকের কাউন্সিলর ফারজানা হকের নেতৃত্বে ক্ষতিগ্রস্ত বস্তিবাসী এই মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের পদত্যাগ দাবী করা হয়। গত সোমবার কাউন্সিলর ফারজানা হক রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের দুর্নীতি, অনিয়ম, অত্যাচার ও জালিয়াতির প্রতিবাদে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নগরীর বস্তিবাসীদের অন্যায়ভাবে উচ্ছেদ করার তীব্র সমালোচনা করেন। ওই সাংবাদিক সম্মেলনে সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর ফারজানা হক আরো বলেন, যেহেতু রেলের কাছ থেকে সিটি কর্পোরেশন ওই বস্তির জমি লিজ নিতে পারেনি সেহেতু বস্তি ভেঙ্গে হাজার হাজার মানুষকে পথে বসানোর কোন অধিকার নেই প্রতিষ্ঠানটির। এদিকে গত ১৯ এপ্রিল বস্তি উচ্ছেদ কার্যক্রমকে কেন্দ্র করে উদ্ভূত পরিস্থিতি সম্পর্কে আলোচনার জন্য আজ (২৭ এপ্রিল) বিশেষ সাধারণ সভার আহবান করেছেন সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এই সাধারণ সভায় বস্তির ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এ ব্যাপারে গতকাল রাতে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আজাহার আলীর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। তার স্ত্রী এ প্রতিবেদক জানান, রাসিক’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রাজশাহীর বাইরে রয়েছেন। রাতে বাসায় ফিরবেন। সূত্র:নতুন প্রভাত

পাতাটি ২৯৮ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন