logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo রাজশাহী সাহাপুর সীমান্তে : এবার ভারতীয় সন্ত্রাসীরা অপহরণ করলো দুই বাংলাদেশী যুবককে ॥ মুক্তিপণ দাবী ২ লাখ টাকা
এবার রাজশাহীর মহানগরীর সাহাপুর সীমান্ত এলাকা থেকে দুই বাংলাদেশী যুবককে অপহরণ করেছে ভারতীয় দুস্কৃতিরা। অপহৃতরা হলো চারঘাট উপজেলার টাঙ্গন গ্রামের মৃত আলাউদ্দিনের পুত্র ফরিদউদ্দিন (১৬) ও একই এলাকার মোহাম্মদ হাবিলউদ্দিনের পুত্র মোহাম্মদ সাদ্দাম উদ্দিন (১৮)। ভারতীয় দুস্কৃতিরা তাদের অপহরণের পর দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ চেয়েছে । এই ঘটনায় সীমান্তবাসীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তবে বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশের (বিজিবি) সাহাপুর সীমান্ত ফাঁড়ি কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন।
জানাগেছে, অপহৃতরা সাহাপুর এলাকায় সীমান্তের ৫শ গজ অভ্যন্তরে বোরো ধানের জমিতে কাজ করছিল। এসময় সীমান্তের ওপারের ভারতীয় বামনাবাদ গ্রামের জিয়া শেখ, মিঠা শেখ, মিজা শেখ , বাপ্পী শেখ ও জব্বার শেখের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা বাংলাদেশী এলাকায় ঢুকে তাদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে অপহরণ করে নিয়ে যায়। কাজ শেষে সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজন খোঁজখবর নিয়ে জানতে পারেন তাদের ভারতীয় সন্ত্রাসীরা অপহরণ করে সীমান্তের ওপারে নিয়ে গেছে। অপহৃত বাংলাদেশী যুবক ফরিদের ভাই উকিলউদ্দিন সাংবাদিকদের জানায়, ভারতীয় সীমান্ত সন্ত্রাসী জিয়া গতকাল দুপুরে তার মোবাইলে ফোন করে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ না দিলে তার ভাইসহ দুই যুবককে হত্যা করা হবে বলে হুমকি প্রদান করে। গতকাল বিকালে অপহৃত তার ভাই ফরিদের সঙ্গে কথা বলায় অপহরণকারীরা। অপহৃতদের ব্যাপক মারধর করা হয়েছে বলেও ফরিদ জানিয়েছেন।
এদিকে অপর অপহৃত যুবক সাদ্দামের বাবা হাবিলউদ্দিন জানান, গত শনিবার রাতে তারা বিজিবির সাহাপুর ও ইউসুফ ফাঁড়িতে জানিয়েছেন। তবে গতকাল পর্যন্ত অপহৃতদের উদ্ধারে কোন তৎপরতা নেই। অপহৃতদের সীমান্ত সংলগ্ন ভারতীয় বামনাবাদ গ্রামের পেছনের জঙ্গলে আটকে রাখা হয়েছে বলেও তিনি জানতে পেরেছেন।
দুই বাংলাদেশী যুবক অপহরণ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিজিবির সাহাপুর সীমান্ত ফাঁড়ির কমাণ্ডার নায়েব সুবেদার সরোয়ার হোসেন জানান গতকাল বিকাল পর্যন্ত গ্রামের কোন লোক ঘটনাটি তাদের জানায়নি। ৩৭ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্ণেল জাহিদ হাসান বলেন এমন ঘটনা তিনি জানেন না। তবে তিনি এখন বিষয়টি খোঁজ নেবেন। এদিকে এলাকাবাসী জানিয়েছে দুই যুবকের অপহরণের ঘটনার পর থেকে তারা সীমান্ত সংলগ্ন বাঙলাদেশী এলাকায় কৃষিকাজ বন্ধ রেখেছেন।

পাতাটি ২৭৪ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন