logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo কর্তব্যে অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনায় ক্লিনিক ভাঙচুর
নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনায় ক্লিনিক ভাঙচুর করেছে উত্তেজিত প্রসুতির নিকট আত্নীয় স্বজনরা। ডাক্তার ও নার্সদের বিরুদ্ধে কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগ তুলে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় তারা এ ভাঙচুরের ঘটনাটি ঘটায়।
স’ানীয় ও রোগীর পরিবার সুত্রে জানাগেছে, নগরীর দড়িখরবোনা এলাকার প্রসুতি লাইলা পারভিন আঁখিকে গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে গ্রেটাররোড এলাকার ডলফিল ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। ডা: শামীম আক্তার ফ্লোরা প্রসুতির দেখভাল করার কথা থাকলেও তিনি ক্লিনিকে উপসি’ত ছিলেন না। আখিঁ শামীম আক্তার ফ্লোরার অধিনে চিকিৎসাধীন ছিলেন। দুপুর পৌনে তিনটার দিকে তার প্রসব ব্যথা দেখা দিলে রোগীর অভিভাবকরা পড়েন বিপাকে। ওই সময় ক্লিনিকে কর্মরত নার্সরা বিষয়টি অবহেলা করে। পরে তারা ফোনের মাধ্যমে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করেন। ওই সময় নার্সরা ডাক্তারের কাছ থেকে পরামর্শ নেয়। রোগীকে স্যলাইন দিয়ে ডেলিভারি রুমে নিয়ে যায়। ডাক্তারের অনুপসি’তিতে দু’জন নার্স ডেলিভারি করান। পরে তারা বাচ্চাটিকে মৃত বলে জানায়।
সন্ধ্যার দিকে আাঁখির আত্মীয়-স্বজনরা বিষয়টি নিয়ে ক্লিনিক কতৃপক্ষের সাথে কথা বলতে যান। ওই সময় তাদের সাথে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে উত্তেজিত লোকজন ক্লিনিকে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। পরে পুলিশ এসে পরিসি’তি শান- করে।
আঁখির দুলাভাই সবুর আলী জানান, গত ৩ বছর আগে তার বিয়ে হয়েছে। তার স্বশুর বাড়ি গোদাগাড়ীর লস্করহাটি গ্রামে। তার স্বামীর নাম রেজাউল করিম। এটাই তাদের প্রথম বাচ্চা। স্বামী রেজাউল করিম গত বছরের মে মাসে তিন মাসের অন্তসত্তা স্ত্রী রেখে চাকরি নিয়ে সৌদি আরবে চলে যান। তিনি আরো জানান যে, ক্লিনিকের পক্ষ থেকে তাদের জানান হয় যে, ওই নবজাতকটি মায়ের গর্ভেই মারা গিয়েছিল। অথচ বাচ্চা সুস’ আছে কিনা তা জানতে সব ধরনের পরিক্ষা নিরিক্ষা করানো হয়েছে ডাক্তারের নির্দেশ অনুযায়ী। সুএ:সোনালী সংবাদ

পাতাটি ২৩৭ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন