logo

   

বিস্তারিত সংবাদ

News Photo আ’লীগনেতা হারান আর নেই
মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মুক্তিযোদ্ধা জাহাঙ্গীর আলম হারান আর নেই। গত সোমবার দিবাগত রাত আড়াইটায় ঢাকার ল্যাব এইড হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেন। (ইন্নালিল্লাহে ……. রাজেউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬২ বছর। তিনি স্ত্রী, ৪ কন্যা, ভাই বোনসহ অনেক আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। দীর্ঘদিন থেকে তিনি হাঁড়ের ক্যান্সারে ভুগছিলেন। আজ ১০ নভেম্বর তার হজ্বে যাবার কথা ছিলো। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর দেড়টায় তার লাশ ঢাকা থেকে রাজশাহীতে এসে পৌঁছে। এরপর বাদ আসর নগরীর সাহেব বাজার জিরোপয়েন্টে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দেয়া হয়। এসময় রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে তার প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানান প্যানেল মেয়র সরিফুল ইসলাম বাবু। পরে রাজশাহী মহানগর আওয়ামীলীগ ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নেতৃবৃন্দ, বিএনপি নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ তার প্রতি শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। নামাজে জানাজার পূর্বে সেখানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন, সাবেক মেয়র আব্দুল হাদী, মিজানুর রহমান মিনু, প্যানেল মেয়র সরিফুল ইসলাম বাবু, আওয়ামীলী নেতা মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, এ্যাড. আসলাম সরকার প্রমুখ। তার নামাজে জানাজায় অন্যান্যের মধ্যে আরো উপসি’ত ছিলেন, মহানগর আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি মাহাবুব জামান ভুলু, এ্যাড. মোজাফফর হোসেন, আওয়ামীলীগনেতা আলহাজ্ব রফিক উদ্দিন আহম্মেদ, নওশের আলী, সৈয়দ শাহাদত হোসেন, নাসিব রাজশাহী জেলা সভাপতি ও রাইফেল ক্লাবের সহ-সভাপতি দৈনিক সোনালী সংবাদ সম্পাদক মো: লিয়াকত আলীসহ রাজশাহীর বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক নেতৃবৃন্দ, ব্যবসায়ী ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন স্তরের বিপুল সংখ্যক মানুষ তার নামাজে জানাজায় অংশ নেন। এর আগে সিটি মেয়র ও আওয়ামীলীগের কেন্দ্রিয় সদস্য এ.এইচ.এম. খায়রুজ্জামান লিটন মুক্তিযোদ্ধা হারানের মরদেহ একনজর দেখার জন্য তার বাসভবনে যান এবং তার পরিবারবর্গের প্রতি সমবেদনা জানান। নামাজে জানাজা শেষে কাদিরগঞ্জ গোরস’ানে তাকে দাফন করা হয়। আগামি শুক্রবার মরহুমের কুলখানী অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষে বাদ আসর মরহুমের রাজারহাতাস’ বাসভবনে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। মুক্তিযোদ্ধা জাহাঙ্গীর আলম হারান, রাজশাহী রাইফেল ক্লাবের সহ-সভাপতি, জেলা ক্রীড়া সংস’ার সাবেক সহ-সভাপতি, রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রির সাবেক পরিচালক ছিলেন। তিনি একজন বিশিষ্ট সমাজসেবক ছিলেন।
বাদশার শোক
ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরো সদস্য ও রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা এক বিবৃতিতে মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামীলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম হারান এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। বিবৃতিতে তিনি মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।
মোহাম্মদ আলী সরকারের শোক
বিশিষ্ট আওয়ামীলীগনেতা মোহাম্মদ আলী সরকার এক বিবৃতিতে জাহাঙ্গীর আলম হারানের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন। বিবৃতিতে তিনি মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।
আওয়ামীলীগের শোক
রাজশাহী মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা জাহাঙ্গীর আলম হারানের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন আওয়ামীলীগ এবং তার অঙ্গ সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ বলেন, হারানের মৃত্যুতে রাজশাহী একজন ভাল সমাজসেবী ও রাজনীতিককে হারালো। তিনি আজীবন আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। যারা শোক প্রকাশ করেছেন, তারা হচ্ছেন- আওয়ামীলীগের কেন্দ্রিয় সদস্য আখতার জাহান, মহানগর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, সহ-সভাপতি আলহাজ্ব রফিক উদ্দিন আহম্মেদ, মীর ইকবাল, যুগ্ম সম্পাদক নওশের আলী, আ’লীগনেতা এনামুল হক কলিং, মহিলা আওয়ামীলীগের জেলা সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. নাসরিন আখতার মিতা, জাতীয় শ্রমিকলীগ রাজশাহী মহানগর সহ-সভাপতি মজিবর রহমান মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আলাউদ্দিন শেখ ভুলু, জেলা যুবলীগ সভাপতি আবু সালেহ ও সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান, আওয়ামীলীগনেতা শাজাহান শামীম প্রমুখ।
সংসদ সদস্য শাহ্‌রিয়ার ও
জিনাতুন নেসার শোক
মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামীলীগনেতা জাহাঙ্গীর আলম হারানের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন, রাজশাহী, চারঘাট-বাঘা আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শাহরিয়ার আলম ও সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য জিনাতুন নেসা তালুকদার।
বিভিন্ন মহলের শোক
আওয়ামীলীগের রাজশাহী মহানগর সহ-সভাপতি, মুক্তিযোদ্ধা জাহাঙ্গীর আলম হারানের মৃত্যুতে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে শোক প্রকাশ করা হয়েছে। নেতৃবৃন্দ তার আত্মার মাগফেরাত কামনা করেছেন। যারা শোক প্রকাশ করেছেন তারা হচ্ছেন, রাজশাহী জেলা নাসিবের সভাপতি ও রাইফেল ক্লাবের সহ-সভাপতি মো: লিয়াকত আলী, রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ড্রাস্টির সভাপতি মো: আবু বাক্কার আলী, সহ-সভাপতি ইমরুল কায়েস, পরিচালক শামসুজ্জামান, আলহাজ্ব হারুনুর রশীদ, মনিরুজ্জামান, এম. শরীফ, আফসার আলী বিশ্বাস, মনিরুল ইসলাম জালু, কাবিরুর রহমান খান, আবু মো: সুলতানুল ইসলাম লাবু, মো: শহীদুল্লাহ্‌, জাহাঙ্গীর আহম্মদ সরকার, কামাল উদ্দিন, ফজলুর রহমান, মেশকাতুর রহমান, মাহবুব আলম বাদশা, মো: নুরুন নবী, চেম্বারের সাবেক সভাপতি হাসেন আলী, চেম্বার সহ-সভাপতি খন্দকার হাফিজুর রহমান, রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সংস’ার সহ-সভাপতি আবুল হোসেন, এ.এইচ.এম. মাকসুদুল করিম সম্রাট, আ.ন. ইসতিয়াজ আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক ইমতিয়াজ আহমেদ সামসুল হুদা, যুগ্ম সম্পাদক রইস উদ্দিন আহম্মেদ, খায়রুর আলম ফরহাদ, কোষাধ্যক্ষ হাসমত হোসেন, বিএনপির কেন্দ্রিয় যুগ্ম মহাসচিব ও রাজশাহী মহানগর সভাপতি সাবেক মেয়র ও এমপি মিজানুর রহমান মিনু, সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. শফিকুল হক মিলন, বিএনপির কেন্দ্রিয় বিশেষ সম্পাদক ও জেলা সভাপতি এ্যাড. নাদিম মোস্তফা, মহানগর যুবদল আহবায়ক মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, যুগ্ম আহবায়ক আসলাম সরকার, রাসিকের সংরক্ষিত আসন-৪ এর কাউন্সিলর বিলকিস বানু, ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মনিরুজ্জামান বাবলু, মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবের রফিক-উদ-দ্দৌলা খান বাবুল, মোমিনুল হক পান্না, মোহম্মদ আলী, এ্যাড. এন্তাজুল হক বাবু, রবিউল ইসলাম, আবুল কালাম আজাদ কামাল, শফিকুল আলম, তৈয়বুর রহমান, মোজাফফর রহমান, আওয়ামী অ্যাডভোকেট ভলানটারী অ্যাসোসিয়েশন রাজশাহী আভা-এর আহবায়ক মঞ্জুর জামান মুকুল, যুগ্ম আহবায়ক খায়রুল বাশার, সদস্য সচিব আসাদুজ্জামান মিঠু, মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদ মহানগর আহবায়ক মাহাবুব-উল-আলম বুলবুল, যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল লতিফ, মীর্জা জাকারিয়া স্মৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদক মীর্জা আনোয়ার হোসেন পটু, পশ্চিম অঞ্চল সচেতন কমিটির আহবায়ক রফিকুল ইসলাম সেন্টু, ডা. রবিউল ইসলাম, রফিকুজ্জামান বেল্টু, সাজ্জাদ হোসেন, সাবেক ছাত্রলীগনেতা আব্দুল মোমিন, জেডু সরকার, বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার সাধারণ সম্পাদক জামিল হোসেন জনি প্রমুখ।
মুক্তিযোদ্ধা সংসদ রাজশাহী জেলা ইউনিট কমান্ড কার্যালয়ে তার মৃত্যুতে শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপসি’ত ছিলেন, সহকারী কমান্ডার আব্দুস সামাদ, জহির উদ্দিন, আবু সাঈদ সরকার, মনোয়ারুল ইসলাম, মোজাম্মেল হক, মাহাবুব কামাল চৌধুরী, গোলাম মো: হান্নান, আলহাজ্ব আব্দুর রশিদ, আব্দুস সামাদ, আব্দুল মালেক চৌধুরী, আব্দুস সোবহান প্রমুখ।সুএ:সোনালী সংবাদ

পাতাটি ৩২৬ বার প্রদর্শিত হয়েছে।

সংগ্রহকারী:

 মন্তব্য করতে লগিন করুন