logo



আমার লেখালেখি



আমার প্রিয় লেখা



আমার ছবিঘর



অনলাইনে আছেন

আব্দুল্লাহ-আল-নোমান এর নতুন বন্ধু নাজমুল


আমাদের সাথে আছেন ২ জন অতিথী
  

আনারুল এর অনলাইন ডায়েরী

এই জালিম দুনিয়ায় বেঁচে থাকা বড়ই দায় ।

ডায়েরী লিখছেন ৪ বছর ৪ মাস ১৭ দিন
মোট পোষ্ট ৫০টি, মন্তব্য করেছেন ৬টি


রাসায়নিক হামলার দায় স্বীকার করেছে সিরিয় বিদ্রোহীরা : সন্ত্রাসী আমেরিকা এখন কি করবে?

লিখেছেন : আনারুল       তারিখ: ০১-০৯-২০১৩



সিরিয়ার বিদেশি মদদপুষ্ট বিদ্রোহীরা দেশটির রাজধানী দামেস্কের কাছে গত ২১ আগস্টের রাসায়নিক হামলার দায়িত্ব স্বীকার করেছে। তারা বলেছে, সৌদি আরব তাদেরকে যে রাসায়নিক অস্ত্র সরবরাহ করেছিল তা ভুলভাবে ব্যবহার করতে গিয়ে ওই বিপর্যয় ঘটেছে। বিদ্রোহীরা বার্তা সংস্থা এপি’কে এ তথ্য জানিয়েছে।

আমেরিকা ও তার কিছু পশ্চিমা মিত্র যখন গত সপ্তাহের ওই রাসায়নিক অস্ত্র হামলার জন্যে প্রেসিডেন্ট বাশার আসাদ সরকারকে দায়ী করে সিরিয়ার ওপর সামরিক হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে, তখন বিদ্রোহীরা মার্কিন বার্তা সংস্থা এসোশিয়েটেড প্রেসের (এপি) সাংবাদিক ডেল গ্যাভলাককে এ তথ্য জানালো।

রাসায়নিক অস্ত্র হামলার স্থান সিরিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় পূর্ব গুথা এলাকার বিদ্রোহীদের পরিবারের পাশাপাশি ‘ডক্টরস উইদাউট বর্ডার’-এর কর্মীদের সাথে অন্তরঙ্গ আলোচনা থেকে সুস্পষ্ট প্রমাণ পাওয়া গেছে যে, সৌদি গোয়েন্দা প্রধান প্রিন্স বান্দার বিন সুলতান বিদ্রোহীদেরকে ওই রাসায়নিক অস্ত্র দিয়েছিল। বিদ্রোহীরা ওই অস্ত্রের সঠিক ব্যবহার না জানার কারণেই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। আর এর ফলে প্রাণ হারিয়েছে নারী ও শিশুসহ শত শত মানুষ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিদ্রোহী গ্যাভলাককে বলেছে, তাদেরকে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করার যথাযথ ট্রেনিং দেয়া হয় নি। ওই বিদ্রোহীর নামের প্রথম অক্ষর ইংরেজি ‘জে’। তিনি বলেন, “আমরা এই অস্ত্র সম্পর্কে ভীষণ কৌতূহলী ছিলাম। অপ্রত্যাশিতভাবে আমাদের কেউ কেউ না জেনেও রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার করতে গেলে বিস্ফোরণটি ঘটে।”

একই ধরনের বক্তব্য দিয়েছেন অপর এক নারী বিদ্রোহী। তার ভাষায়-“তারা আমাদেরকে বলেনি এগুলো কী ধরনের অস্ত্র ছিল কিংবা কীভাবে এগুলো ব্যবহার করতে হয়। এগুলো যে রাসায়নিক অস্ত্র ছিল সেটা আমরা জানতাম না। আমরা ভাবতেও পারিনি এগুলো রাসায়নিক অস্ত্র ছিল।” নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই নারী বিদ্রোহীর নামের প্রথম অক্ষর ইংরেজি ‘কে’।

তবে এক তাকফিরি বিদ্রোহীর বাবা আবু আব্দেল মোনেম অস্ত্রগুলোর বাহ্যিক বর্ণনা দিয়ে গাভলাককে বলেছে, অস্ত্রগুলোর কিছু কিছু ছিল টিউবের মতো, আবার কিছু ছিল গ্যাসের সিলিন্ডারের মতো। তিনি আরো বলেন, সৌদি সন্ত্রাসী আবু আয়েশা অস্ত্রগুলো নিয়ে এসেছিল।

এপি’র সংবাদদাতা গ্যাভলাক অন্তত ১২ বিদ্রোহীর সাক্ষাতকার নিয়েছে। এসব সাক্ষাতকারে তারা বলেছে,তাদের বেতন-ভাতা সৌদি সরকার বহন করে।

গ্যাভলাকের এসব তথ্য প্রমাণিত হলে সিরিয়ার ওপর আমেরিকার হামলার পরিকল্পনা পুরোপুরি ভেস্তে যাবে। কারণ, মার্কিন সরকার দাবি করেছে, তাদের কাছে সুস্পষ্ট প্রমাণ আছে, বাশার আসাদ সরকারই ওই রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে।

এপি’র সাংবাদিক ডেল গ্যাভলাক যথেষ্ট বিশ্বস্ত এবং নির্ভরযোগ্য সাংবাদিক হিসেবে পরিচিত। তিনি গত ২০ বছর ধরে এসোশিয়েটেড প্রেসের মধ্যপ্রাচ্য প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। একইসঙ্গে তিনি আমেরিকার ন্যাশনাল পাবলিক রেডিও (এনপিআর)এর জন্যও কাজ করেছেন এবং বিবিসি, পিবিএস এবং স্যালন ডটকমে তিনি লেখালেখি করেছে।#

৪২৮ বার পঠিত

 
মন্তব্য করতে লগিন করুন।
  

সাম্প্রতিক মন্তব্য



ছবিঘরের নতুন ছবি